বসন্ত এসেও আসেনি

বসন্তের গল্প শুনবেন? ভালোবাসা দিবসের গল্প? প্রেম আসা না আসার গল্প? এই গল্পটা আমার বন্ধু মাহমুদের। নির্ঝর আবাসিক এলাকায় আমাদের বাসা।মাহমুদও ওখানেই থাকে। ওর বাবা

উজবেক কবি ও আমি

কথা বলতে গিয়ে আমি একটি প্রশ্নের মূখোমুখি হলাম।তিনি জানতে চাইলেন আপনিকি কবিতা লেখেন? আমি বললাম কবিতা লিখি না।তিনি তখন আমাকে দ্বিতীয় প্রশ্নটি করলেন। অবাক হয়ে

ভাবনায় ছিলোনা এমন

ফুটপাত ধরে একাকী হাটছি।হঠাৎ একটি কালো পাজেরো গতি কমিয়ে আমার পাশে পাশে চলতে শুরু করলো।আমি ভাবলাম গাড়ীটা থামবে তাই গতি কমিয়েছে।পরে দেখলাম গাড়ীর কাচ নামিয়ে

কচুরিপানার খাল

বিকেলে ফুটবল খেলতে গিয়ে রোজ একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতো কলেজে।এ ফর্মের কারো পা থেকে বল গিয়ে যদি কোন ভাবে ইকরামের পায়ে ঠেকতো তাহলে সেই চিরচেনা

ছোটবোনের মেহমানদারী

জেএসসি পরীক্ষার পর বেশ লম্বা ছুটি আমার হাতে।সারাদিন টিভি দেখা,ঘুরতে যাওয়া,গেমস খেলার পরও আমি চেষ্টা করি কিছুটা পড়াশোনা করতে।গল্পের বই বেশি পড়ছি তবে ক্লাস নাইনের

ইরেজার

জাজাফীর মন ভালো নেই।শাহ মখদুম হল থেকে বেরিয়ে হাটতে হাটতে বঙ্গবন্ধু হলের সামনে দিয়ে শামছুজ্জোহার সমাধি পেরিয়ে সে তখন একাকী হাটছে প্যারীস রোডে।কোন কিছুই তার

চারিত্রিক সনদপত্র ও অন্যান্য

বিকেল গুলো এখন বিষন্ন হয়ে উঠেছে।রাত জেগে ফেসবুক ইউটিউবে ঘুরাঘুরি করে সকালে ঘুমোতে গেলে ঘুম ভাঙে দুপুরে।যতক্ষণ ঘুমিয়ে থাকি কোন চিন্তা নেই কিন্তু বিকেল যেন

চারিত্রিক সনদপত্র ও অন্যান্য

বিকেল গুলো এখন বিষন্ন হয়ে উঠেছে।রাত জেগে ফেসবুক ইউটিউবে ঘুরাঘুরি করে সকালে ঘুমোতে গেলে ঘুম ভাঙে দুপুরে।যতক্ষণ ঘুমিয়ে থাকি কোন চিন্তা নেই কিন্তু বিকেল যেন

চিঠিওয়ালার খোঁজে

—জাজাফী কোটালিপাড়া বাস স্ট্যান্ড থেকে একটু অদুরেই সুন্দর পরিপাটি পোষ্টঅফিস।মোবাইল ইন্টারনেটের যুগে এখন আর কেউ তেমন একটা চিঠি লেখেনা বলেই পোষ্টঅফিসটাকে পরিত্যাক্ত মনে হয়।মানুষ মনে

মানিক জেনারেল স্টোর

–জাজাফী মধুমিতা রোড দিয়ে ঢুকে একটু সামনে এগোতেই হাতের ডানে মোড় নিয়েছে একটি সরু গলি।গলির এই রাস্তাটি আরিচপুরের মধ্য দিয়ে সোজা গিয়ে মিশেছে টঙ্গী বাজারে।আইসক্রিম