ছোটবোনের মেহমানদারী

জেএসসি পরীক্ষার পর বেশ লম্বা ছুটি আমার হাতে।সারাদিন টিভি দেখা,ঘুরতে যাওয়া,গেমস খেলার পরও আমি চেষ্টা করি কিছুটা পড়াশোনা করতে।গল্পের বই বেশি পড়ছি তবে ক্লাস নাইনের বইও সংগ্রহ করে পড়তে চেষ্টা করছি।আবার কখনো কখনো কোন কিছুই পড়তে ইচ্ছে করেনা। এই যেমন আজকে।পড়ার টেবিলে বসে আছি কিন্তু পড়ায় মন বসছে না। অনেকক্ষণ ধরে তাই কলম নিয়ে আঁকিবুকি

ইরেজার

জাজাফীর মন ভালো নেই।শাহ মখদুম হল থেকে বেরিয়ে হাটতে হাটতে বঙ্গবন্ধু হলের সামনে দিয়ে শামছুজ্জোহার সমাধি পেরিয়ে সে তখন একাকী হাটছে প্যারীস রোডে।কোন কিছুই তার ভালো লাগছে না।সোডিয়াম বাতির মোহনীয় আলো তার মনকে আরো ভারাক্রান্ত করে তুলেছে।অন্য দিনের মত আজ আর সে তাপসী রাবেয়া হলের দিকে হাটছে না।ওদিকে যাবার সব গুলো রাস্তা বোধহয় গতকালই বন্ধ

চারিত্রিক সনদপত্র ও অন্যান্য

বিকেল গুলো এখন বিষন্ন হয়ে উঠেছে।রাত জেগে ফেসবুক ইউটিউবে ঘুরাঘুরি করে সকালে ঘুমোতে গেলে ঘুম ভাঙে দুপুরে।যতক্ষণ ঘুমিয়ে থাকি কোন চিন্তা নেই কিন্তু বিকেল যেন আর কাটতেই চায় না।কি করে কাটবে?একাকী এই শহরে ঘুরে বেড়াতে কার বা ভালো লাগে।যখন আমার অখন্ড অবসর তখন বন্ধুরা ব্যাচমেটরা সব অফিসে নিজের ক্যারিয়ার আর কাজ নিয়ে ব্যস্ত।শুধু আমরাই কোন