জাজাফী গল্প শানের নতুন সাইকেল

শানের নতুন সাইকেল



বাসায় ফিরে আসার পর দেখি শানের জন্য বাবা নতুন একটা সাইকেল কিনে এনেছে।সাইকেলটা খুবই সুন্দর।শান সেটা নিয়ে সারা রাস্তা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।তার সাথে জুটেছে তার কিছু বন্ধু।শান ক্লাস ফোরে পড়ে।আমার একমাত্র ছোট ভাই সে।বাবা মা কাউকে দেখলাম না।হয়তো বাইরে কোথাও গেছে।আমি শানকে থামিয়ে বললাম শান আমাকে চড়াবা?শান বললো ভাইয়া তাই কি হয়নাকি।তোমাকে কি করে চড়াই।তুমি কত বড় মানুষ তা ছাড়া তুমি আমার নিজের ভাই।তোমাকে আমি চড়াতে পারবো না।আমি বললাম কি বলো! চড়ালে সমস্যা কি?আমার ছোট ভাইটাকে আমি খুবই ভালবাসি।সেটা সে নিজেও জানে তারপরও বললো ভাইয়া এটা হয়না।তোমাকে চড়ালে তুমি রাগ করবা, এমনকি মারবা আমাকে।তাছাড়া তুমি আম্মুকেও বলে দিতে পারো।আম্মু যদি শোনে আমি তোমাকে চড়াইছি তাহলেই শেষ।কালকেই সাইকেলটা বিক্রি করে দবে।ভাইয়া এটা আমি পারবো না।

শানেরর কথাবার্তা শুনে আমি খুবই অবাক হয়ে গেলাম।নতুন সাইকেল,আমাকে চড়ালে কি এমন ক্ষতি হবে।আমিতো আর অনেক বড় কেউ নই।মাত্র ক্লাস এইটে পড়ি।ওর সাইকেলে ভার্সিটি পড়ুয়া কেউ চড়লেও কিচ্ছু হবেনা।আমি আবার বললাম প্লিজ শান এমন করে না ভাই আমার।এই তোমার মাথা ছুয়ে বলছি আমাকে চড়ালে আমি আম্মুকেও বলবো না আবার তোমাকেও বকবো না।ভাইয়াকে চড়ালে কেউ বকে নাকি।শান একটু নরম হলো।কাছে এসে বললো, ভাইয়া ঠিক আছে সবাইকে সাক্ষী রেখে তোমাকে চড়াবো কিন্তু তুমি রাগও করতে পারবা না আবার আম্মুকেও বলতে পারবা না।আমি বললাম ঠিক আছে তুমি যা বলবা তাই হবে।

শান এবার বললো আচ্ছা ভাইয়া তুমি এবার বলো তোমাকে আমি কয়বার চড়াবো।আমি বললাম একবার চড়ালেই হবে আর যদি চাও অনেক বার চড়াবা তাও কোন সমস্যা নেই।এবার শান বললো, ভাইয়া তাহলে তুমি কি রেডি?আমি বললাম অবশ্যই রেডি।আমি রেডি বলার সাথে সাথেই ঠাস করে একটা শব্দ হলো। শব্দটা এসেছে আমার গাল থেকে।শান ঠাস করে আমার গালে চড় বসিয়ে দিয়েছে আর আমি ব্যাথায় ককিয়ে উঠেছি।

ওর বন্ধুরা সবাই হো হো করে হেসে উঠেছে।আমি গালে হাত দিয়ে ব্যাথা উপশম করতে করতে বললাম শান এটা কি হলো?শানের সরল জবাব,ভাইয়া তুমিইতো বললে চড়াতে! এখন আবার প্রশ্ন করতেছ এটা কি হলো?আর চড়ানোর আগেতো তোমার সাথে ডিটেল কথা হয়েছে।তুমি কথা দিয়েছ কিছু বকবানা এবং আম্মুকেও বলবানা।আমি বললাম তা না হয় ঠিক আছে কিন্তু চড় মারলে কেন?আমিতো সাইকেলে চড়ানোর কথা বলেছি।শান হঠাৎ লজ্জা পেলো।কাছে এসে বললো, স্যরি ভাইয়া আমি বুঝতেই পারিনি যে তুমি সাইকেলে চড়ানোর কথা বলেছ।তুমি বার বার চড়াতে বলছিলে আমি ভেবেছি তুমি চড় মারতে বলেছ!

রাতে খেতে বসে আমাকে আর কিছু বলতে হলো না শান নিজেই আম্মুকে আর বাবাকে ঘটনাটা বললো।খাবার টেবিলে সবাই হো হো করে হেসে উঠলো।সেই হাসিতে আমিও যোগ দিলাম।এর পর শানকে কোন কথা বলতে গেলে আমি সময় নিয়ে ভেবে তার পর বলতাম।আবার না কোন ফাঁদে আটকে ফেঁসে যাই সেই ভয়ে।

গল্পঃ শানের নতুন সাইকেল

লেখাঃজাজাফী