রঙ্গীন ফানুস-শেষ চ্যাপ্টার

(মাঝের চ্যাপ্টার গুলো এখনো কম্পোজ শেষ হয়নি) মিনহাজ ফিরে এসে দেখলো সারা বাড়ি লোকারণ্য।আজতো কোন উৎসব নেই এ বাড়িতে।তাহলে এতো মানুষ জড় হয়েছে কেন?দূর থেকে

রঙ্গীন ফানুস, পর্ব-৩

জাকির বেশ ভাল মাবের্ল খেলতে পারতো।শুনেছি জাকির এখন বাইরে থাকে।ও যখনি খেলতে চাইতো আমরা তখন চুপসে যেতাম।কারণ ওর হাতের টিপ বা নিশানা চমৎকার।একবার বেশ মনে

রঙ্গীন ফানুস, পর্ব-২

     কবির স্যারের মুখে সেই প্রথম ক্যাডেট কলেজের নাম শুনি আমি।কিন্তু সে সম্পর্কে আমার কোন ধারনাই ছিলনা।কোন দিন ভুল করেও কবির স্যারকে জিজ্ঞেস করা হয়নি

রঙ্গীন ফানুস, পর্ব-১

(ক্যাডেট কলেজ লাইফ নিয়ে নতুন উপন্যাস) ১. রাজশাহী যাচ্ছি।ঝিনাইদাহ মোড় পেরিয়ে গাড়িটা সবেগে ছুটে চলেছে রাজশাহীর পথে।এই প্রথম রাজশাহী যাচ্ছি।কিছু দূর যেতেই হাতের ডান পাশে

ক্যাডেট জুনায়েদ এবং চাকমা সমাচার

ক্যাডেট জুনায়েদকে প্রথম দিন দেখেই মনে হয়েছিল সে আসলে চাকমা।কিন্তু আমি কথাটা জিজ্ঞেস করতে পারিনি। ভেবেছি পরে সুযোগ পেলে জিজ্ঞেস করবো যে দোস্ত তুইকি চাকমা?কিন্তু

অবহেলিত রশ্মি

ক্যাডেট কলেজে ভর্তি হওয়ার পর অনেকেই বছরের পর বছর পার করেও খুব বশি পরিচিতি পায়না কিন্তু আমাদের ক্যাডেট জাহিদ ভর্তির কয়েক মাসের মধ্যেই গোটা কলেজে

কাইয়ুম ও টিকটিকির গল্প

ক্যাডেট কাইয়ুম আমার ভাল বন্ধু।তবে দুষ্টুর শিরোমনি সে।আমরা যখন পিসিসিতে ভর্তি হলাম তখন সবার আগে আমার কাইয়ুমের সাথে পরিচয়।দেখে মনে হয়েছিল খুব সাদাসিধে কিন্তু আদতে

ক্যাডেট নাইমের ভাইভার গল্প

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ থেকে এক আলাভোলা ছেলে নাইম কিভাবে কিভাবে যেন ক্যাডেট কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় টিকে গেল।ছাত্র হিসেবে ভাল ছিল বলেই হয়তো টিকেছিল কারণ পরবর্তীতে সে

তোফায়েলের প্যারেন্টস ডে

রাতে কারো ঘুম আসছিলনা। লাইটস অফের ঘন্টা বাজলেই বা কার কি। চিন্তা একটাই কালতো প্যারেন্টস ডে।ক্যাডেট লাইফে প্যারেন্টস ডে মানেই ক্যাডেটদের ঈদের দিন।হয়তো আমারও। কিন্তু

সুদিনের অপেক্ষায়

বইটা হাতে নিয়ে পাতা উল্টাতে উল্টাতে হঠাৎ হেসে উঠলো নিরব।ও সাধারণত হাসে না।যে বইটা হাতে নিয়েছে সেটা আলমারি থেকে আমিই বের করে দিয়েছি।কোন রম্য গল্পের