জাজাফী কবিতা আমাদের দেখা হয়েছিল

আমাদের দেখা হয়েছিল



একবারই আমাদের দেখা হয়েছিল
না না একবার নয়,দুইবার
শীতের শেষ বিকেলে সুর্য ডুবে গিয়ে যখন সারা আকাশ জুড়ে
কুয়াশা নেমে আসছে তখন
কোন এক যান্ত্রিক শহরের ব্যস্ত রাস্তায় আমি দৌড়াচ্ছি
তোমাকে দেখবো বলে।

সময়কে বেঁধে রাখতে না পেরে সময়ের সাথে পাল্লা দিতে
মোটর যানে চড়েছি,দৌড়েছি রিকশার মন্থর গতি এড়াতে
যদি দুটো মিনিট আগে পৌছাতে পারি তবে তোমাকে দুমিনিট বেশি দেখতে পাবো
এই ভাবনা থেকে আমার অবিরাম ছুটে চলা।

অনেক গুলো বসন্ত পেরিয়েছে,অনেক শীতের সকালে
একাকী সুর্যর আলোর দিকে মুখ করে দাড়িয়েছি
দু বছর তো কম সময় নয়,তুমি মুখ তুলে তাকালে
দেখা হয়ে গেলো তোমার আমার।

তুমি আর আমি দুই শহরে থাকি, দূরত্ব সীমাহীন
তবুও রোজ তোমাকে দেখি,খুব কাছে কাছে রাখি
হৃদয় ছোয়া সেই দূরত্ব ঘুচিয়ে দিতে ইচ্ছে করে
তার পর তুমি এলে আমার শহরে
তোমাকে দেখে আমি যেন আকাশের চাঁদ মাটিতে নেমে আসতে দেখেছি।

যতটা সময় পাশে ছিলে,দুচোখ ভরে দেখেছি
যেন চোখ সরালেই তুমি হারিয়ে যাবে সেই ভয়ে
আমি সারাক্ষণ তোমার পানে তাকিয়ে থেকেছি
আমার চাহুনিতে তুমি কিছু দেখেছ কিনা জানা হয়নি
আমার অযাচিত বাহানা তোমাকে কষ্ট দিয়েছে বলে ক্ষমা চাই।

খুব ভোরে সুর্য জাগার আগে আমি জেগে উঠি
তোমার সান্নিধ্য পাবো বলে ছুটি নিরন্তর
অপেক্ষাও তখন মধুর লাগে এই ভেবে যে তুমি আসবে
তোমার আগমনের চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই
তোমার হাসির চেয়ে সুন্দর আর কিছু নেই
তোমার চুলের খোপার চেয়ে সুদৃশ্য আর কিছু নেই
দু একটা চুল বাতাসে তোমার মুখ ঢেকে দিচ্ছিল
আমি তা সরিয়ে দিয়ে চাঁদমুখটা দেখেছি বার বার।

তার পর এলো শেষ ট্রেন
তোমাকে সেই ট্রেনে উঠিয়ে দিতেই বুকটা হুহু করে কেঁদে উঠলো
তোমার গন্তব্য ধীরে ধীরে তোমার সন্নিকট হলো
আমার সাথে দূরত্ব বাড়তে বাড়তে বহু দূরে চলে গেলে
আবার কবে দেখা হবে তার অপেক্ষা কেবলই।

২৬ জানুয়ারি ২০১৯
আমাদের দেখা হয়েছিল।
জাজাফী