জাজাফী গল্প ইরেজার

ইরেজার

জাজাফীর মন ভালো নেই।শাহ মখদুম হল থেকে বেরিয়ে হাটতে হাটতে বঙ্গবন্ধু হলের সামনে দিয়ে শামছুজ্জোহার সমাধি পেরিয়ে সে তখন একাকী হাটছে প্যারীস রোডে।কোন কিছুই তার ভালো লাগছে না।সোডিয়াম বাতির মোহনীয় আলো তার মনকে আরো ভারাক্রান্ত করে তুলেছে।অন্য দিনের মত আজ আর সে তাপসী রাবেয়া হলের দিকে হাটছে না।ওদিকে যাবার সব গুলো রাস্তা বোধহয় গতকালই বন্ধ হয়ে গেছে। এখন তার গন্তব্য শাহেব বাজার।এই পথটুকু হেটে কাজলা গেটে গিয়ে রাস্তা পার হবে তার পর রিকশা নিয়ে চলে যাবে সাহেব বাজার।

কাজলা গেট পার হতেই একটা রিকশা পেয়ে গেলো।রিকশায় একজন যাত্রী ছিলো সে ওখানেই নামলো।রিকশাওয়ালা জানতে চাইলো কোথায় যাবেন? জাজাফী বললো সাহেব বাজার চলুন।রিকশায় চড়তেই রিকশা চলতে শুরু করলো।কাজলা গেট পেরিয়ে রুয়েট পেরিয়ে রিকশা চলছে সাহেব বাজারে।কিছু একটা কিনতে হবে সে জন্যই ওদিকে যাওয়া।কি কিনতে হবে মনে করতে চেষ্টা করলো জাজাফী। খানিকটা ভাবার পর মনে পড়লো একটা ইরেজার কিনতে হবে।এদিকে অনেক দোকান থাকলেও সেরকম ভালো মানের ইরেজার সে পায়নি।অগত্যা যেতে হলো সাহেব বাজার।রিকশা ভাড়া মিটিয়ে বড় লাইব্রেরীতে গিয়ে দাড়ালো সে।দোকানী জানতে চাইলো কি লাগবে? জাজাফী বললো ভালো ইরেজার হবে?দোকানদার ছেলেটা বেশ কিছু ইরেজার দেখালো।দেখতে বেশ চমৎকার কিন্তু কোনটাই পছন্দ হলো না জাজাফীর।

তার এমন ভাব দেখে দোকানদার জানতে চাইলো এগুলোতো সেরা ইরেজার।যে কোনটাই নিয়ে যেতে পারেন।জাজাফী মাথা দোলালো।তার মানে এগুলো দিয়ে তার কাজ হবে না।দোকানী জানতে চাইলো কি মুছবেন ইরেজার দিয়ে?এগুলো দিয়েতো পেন্সিলের দাগ এমনকি কলমের দাগও মুছতে পারবেন।জাজাফীর কোন ভাবান্তর হলো না।অমোচনীয় কালি মুছা যাবে এমন কোন কিছু কি লাগবে?দোকানী জানতে চাইলে জাজাফী মাথা নেড়ে সায় দিলো।এবার দোকানী একটা লিকুইডের বোতল দিলেন।সেটার গায়ে লেখা রিডিউসার।দোকানী জানালো এটি দিয়ে যে কোন লেখা যে কোন কিছু মুছে ফেলতে পারবেন।বোতলটা হাতে নিয়ে নেড়েচেড়ে দেখলো জাজাফী। তার পর জানতে চাইলো এটি দিয়ে কি সেই মেয়েটির নাম মুছে ফেলা যাবে যার নাম আমার হৃদয়ে লিখেছি!গতকাল সে আমাকে বলেছে আমি যেন তার নাম মুছে ফেলি হৃদয় থেকে।

দোকানদার ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে থাকলো। তার চোখটা কেন যেন ঝাপসা হয়ে গেলো।সে দেখতে পেলো জাজাফী নামের ছেলেটি তার দোকান থেকে খালিহাতে ফিরছে।হৃদয়ে লেখা প্রিয়তমার নাম মুছে ফেলার মত ইরেজার খুঁজতে খুঁজতে নিশ্চই জাজাফীর বাকি জীবন কেটে যাবে।তার পর একদিন নিজেই ইরেজ হয়ে যাবে পৃথিবী থেকে।

গল্পঃ ইরেজার
লেখাঃ জাজাফী
৩০ অক্টোবর ২০১৮

Tags: ,